মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়নকর্পোরেশন

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়নকর্পোরেশনের সিটিজেন চার্টার

 

১৯৬১ সালের ১৬ ই অক্টোবর ৩৭ নং অধ্যাদেশ বলে ইস্ট পাকিস্তান এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন(ইপিএডিসি) প্রতিষ্ঠা লাভ করে, যা বর্তমানে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন(বিএডিসি) নামে পরিচিত।

 

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত সংস্থা হিসাবে বিএডিসি কৃষি উপকরণ ও প্রযুক্তিসমুহ কৃষকদের মাঝে সরবরাহকরণে এবং দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করে তোলা ও জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে অব্যাহত ভূমিকা পালনে সহায়তা করতে অঙ্গীকারাবদ্ধ । এ অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বিএডিসি’র প্রশাসন উইং, অর্থউইং, বীজ ও উদ্যান উইং, ক্ষুদ্রসেচ উইং এবং সার ব্যবস্থাপনা উইং একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।

 

উল্লেখিত উইংগুলোর মধ্যে বীজ ও ও উদ্যান উইং, ক্ষুদ্রসেচ উইং এবং সার ব্যবস্থাপনা উইং সরাসরি মাঠ পর্যায়ে সেবা প্রদান করে থাকে এবং প্রশাসন উইং ও অর্থউইং সহায়ক সেবা প্রদানের কাজে নিয়োজিত রয়েছে। বিএডিসি’র উইংওয়ারী সিটিজেন চার্টার নিম্নরূপঃ

 

ক্ষুদ্রসেচ উই

ক্রমিক

নং

কাজ/ সেবার নাম

উপস্থাপন / নিষ্পত্তির সময়কাল

মন্তব্য

১।

ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে পানি সম্পদ উন্নয়নে প্রয়োজনীয়নীতিমালা / পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে সরকারকে পরামর্শপ্রদান।

মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা অনুসারে দ্রুততার সাথেপ্রয়োজনীয় পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন কাজসম্পাদন।

ক্ষুদ্রসেচ নীতিমালাপ্রণয়নে সরকারকেসহযোগিতা প্রদান করাহয়।

২।

ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়নের লক্ষ্যে ভূ-গর্ভস্থ ও ভূ-পরিস্থ পানি সম্পদউন্নয়নের নিমিত্ত সেচ অবকাঠামো নির্মাণ, ভূ-গর্ভস্থ ও ভূ-পরিস্থ সেচ নালা নির্মাণের মাধ্যমে সরেজমিনে দক্ষ সেচ ওপানি ব্যবস্থাপনা (OFWM) কর্মসূচি বাস্তবায়ন।

প্রকল্পের মাধ্যমে পানি সম্পদ যথাযথ উন্নয়ন ওব্যবহারের জন্য বিভিন্নধরনের সেচ অবকাঠামোনির্মাণ এবং দক্ষ সেচ ব্যবস্থার জন্য ভূ-গর্ভস্থ ওভূ-পরিস্থ সেচনালা নির্মাণ।

প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে

সম্পাদন করা হয়।

 

৩।

দুর্গম পাহাড়ী, চর ও উপকূলীয় এলাকাসহ বিশেষ সেচ ব্যবস্থাপ্রয়োগসহ সমগ্র দেশে সেচ এলাকা বৃদ্ধির জন্য স্বল্প, মধ্য ওদীর্ঘ মেয়াদি প্রকল্প প্রণয়ন, বাস্তবায়ন, মূল্যায়ণ ও ভবিষ্যৎকর্মপন্থা নির্ধারণ।

সেচ এলাকা বৃদ্ধির জন্য পাহাড়ি, চর ওউপকূলীয় এলাকায় প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়নকরন এবং প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে ভবিষ্যতকর্মপন্থা নির্ধারণ।

প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমেসম্পাদন করা হয়

 

৪।

ছোট নদী, খাল, নালা ইত্যাদি সংস্কার, খনন/পুন:খনন এবং সেচঅবকাঠামো নির্মাণ করে পানির প্রাপ্যতা বৃদ্ধিসহ শক্তিচালিত ওভাসমান পাম্প ব্যবহারের মাধ্যমে বোরো মৌসুমে ভূ-পরিস্থ পানিরসর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিতকরণ।

ভূ-পরিস্থ পানি উন্নয়নে existing ছোট নদী, খালও বিল ইত্যাদি পুনঃখননসহ সেচ অবকাঠামোনির্মাণের মাধ্যমে পানি সংরক্ষণ এবং এ ধরনেরপ্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে কার্যসম্পাদন।

প্রকল্প গ্রহনের মাধ্যমে

সম্পাদন করা হয়

 

৫।

আধুনিক লাগসই কৃষি ও সেচ যন্ত্রপাতি সরবরাহ, স্থাপন, ব্যবহার,সেচ ব্যবস্থাপনা উন্নয়নে সেচ প্রকৌশল প্রযুক্তির প্রয়োগ, সেচসম্প্রসারণ, সেচ দক্ষতা বৃদ্ধি ও ফলন পার্থক্য (Yield Gap)কমানোর উপর কৃষক প্রশিক্ষণ।

স্থানীয় এলাকার উপযোগী লাকসই কৃষি ও

সেচযন্ত্রপাতি সরবরাহ, স্থাপন, ব্যবহার, সেচব্যবস্থাপনা উন্নয়ন, সেচ সম্প্রসারণ ও সেচ দক্ষতাবৃদ্ধিতে ভূ-গর্ভস্থ (বারিড পাইপ) ও ভূ-পরিস্থসেচনালা নির্মাণ। উল্লিখিত কার্যক্রম বাস্তবায়ন ওফলন পার্থক্য কমানোর জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রমগ্রহণ ও সম্পাদন।

প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে

সম্পাদন করা হয়

 

৬।

সেচযন্ত্র, সেচ এলাকাসহ ভূ-গর্ভস্থ/ভূ-পরিস্থ পানিসম্পদজরীপ, আধুনিক উন্নত পদ্ধতিতে পানির স্তর পরিবীক্ষণ, ৬ টিআঞ্চলিক ও ২৩০ টি মিনি ল্যাবের মাধ্যমে পানির গুণাগুণপরীক্ষা করে বিভিন্নপ্রকাশনার মাধ্যমে তথ্য সেবা প্রদান।

পানির গুণাগুণ জানার জন্য নিয়মিত পানিরনমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা করা, পানির স্তরনিয়মিত পরিবীক্ষণ এবং বিভিন্নপ্রকাশনারমাধ্যমে তথ্য সেবা প্রদান।

 

 

  :

 

ক্রমিক

নং

কাজ/ সেবার নাম

উপস্থাপন / নিষ্পত্তির সময়কাল

মন্তব্য

৭।

আর্সেনিকসহ অন্যান্য উপাদান যা সেচজনিত পরিবেশ দূষণসমস্যার কারণ তা অনুসন্ধান ও সমাধানের দিক নির্দেশণাপ্রদান।

সেচের পানিতে আর্সেনিক সহ অন্যান্য

উপাদানের মাত্রা নিরূপণ এবং তা প্রতিবেদনআকারে প্রকাশ করা ।

 

৮।

খরা, দুর্যোগ, ঘুর্ণিঝড়, জলোচ্ছাস ও সিডরসহ বিভিন্ন আপৎকালীন সময়ে জরুরী ভিত্তিতে সেচ ও সেচ সংক্রান্তকারিগরি সেবা প্রদান;

প্রাকৃতিক দুর্য়োগের সময় মন্ত্রণালয়ের নির্দেশেসংশ্লিষ্ট এলাকায় দ্রুত কারিগরি সেবা প্রদান।

এলাকার চাহিদাঅনুযায়ী বিভিন্নকার্যক্রম বাস্তবায়নকরা হয়।

৯।

অকেজো / অচল গভীর নলকূপ পুনর্বাসন, নতুন নলকূপ স্থাপনএবং ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ফোর্স মোড নলকূপ স্থাপন করেক্ষেত্রায়নের মাধ্যমে সেচ সেবা প্রদান ও সেচ এলাকাসম্প্রসারণ করণ।

সেচ সুবিধাসম্প্রসারণ ও কৃষদের উত্তম সেবাপ্রদানের জন্য অঞ্চল ভিত্তিক বিভিন্নধরনেরনুতন সেচ যন্ত্র স্থাপন এবং পুরাতন সেচযন্ত্রপুনর্বাসন কাজ সম্পাদন ওক্ষেত্রায়ন।

প্রকল্প গ্রহনের মাধ্যমে

সম্পাদন করা হয়

 

১০।

গ্রামীন কৃষি ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারেরবিভিনড়ব বিভাগ/ সংস্থা ও এনজিও এর সাথে যৌথভাবে /এককভাবে সমন্বিত ও আঞ্চলিক কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন।

গ্রামীন কৃষি ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারেরবিভিন্নবিভাগ/ সংস্থা ও এনজিও এর সাথে যৌথভাবে /এককভাবে সমন্বিত ও আঞ্চলিক কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ ওবাস্তবায়ন।

মন্ত্রণালয়ের পরামর্শে

বিভিন্নসংস্থার সাথে

কৃষি উন্নয়নে যৌথ

প্রকল্প গ্রহন করা হয়।

১১।

নির্মাণ বিভাগের মাধ্যমে সবজি, ফলমূল ও বীজ সংরক্ষণেআধুনিক হিমাগার নির্মাণ ওরক্ষণাবেক্ষণসহ                                                                                                                                                                                    বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের আওতায় গৃহীত সকলপূর্ত কাজের ডিজাইন, নির্মাণ ও মেরামতকরণ এবং সেচবিভাগের আওতায় গৃহীত প্রকল্পসমূহের সেচ অবকাঠামোরডিজাইন ও এস্টিমেট নির্মাণ বিভাগের মাধ্যমে সম্পাদন।

নির্মাণ বিভাগের মাধ্যমে সবজী, ফলমূল ও বীজসংরক্ষণে আধুনিক হিমাগার নির্মাণ ওরক্ষণাবেক্ষণ এবং বিএডিসি‘র পূর্ত কাজেরডিজাইন, নক্সা, এষ্টিমেট ইত্যাদি প্রণয়ন ওবাস্তবায়ন।

 

বিএডিসি বীজ উইং এরবীজ গুদাম, হিমাগার,সীড প্রসেসিং সেন্টার ও

সংস্থার বিভিন্ন

পূর্তকাজের নির্মাণের

ডিজাইন, এষ্টিমেট এবংসুপারভিশন করা হয়।

১২।

লবন পানির অনুপ্রবেশ সম্পর্কিত তথ্যসংগ্রহ, বিশ্লেষণ,পূর্বাভাস প্রদান ও প্রতিরোধে পরামর্শ প্রদান ।

 

লবন পানির অনুপ্রবেশ সম্পর্কিত বিভিন্নতথ্যসংগ্রহের ব্যবস্থা এবং এতদ বিষয়ে প্রয়োজনীয়পরামর্শ দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ ।

কর্মসূচির মাধ্যমে লবন

পানির অনুপ্রবেশ

সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ

করা হচ্ছে।

১৩।

পাহাড়ী ছড়া/ছোট নদীতে রাবার ড্যাম স্থাপনের মাধ্যমে সেচসুবিধা প্রদান।

ছোট ছোট প্রবাহমান পাহাড়ী ছড়া/ নদীর পানিধরে সেচ কার্য সম্পাদনের জন্য রাবার ড্যামনির্মাণের ব্যবস্থা।

প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে

সম্পাদন করা হয়।

 

১৪।

প্যারামিটার ভিত্তিক জোনিং ম্যাপ প্রস্ত্তত ও আপডেট করণ।

অঞ্চল ভিত্তিক স্থিতিশীল পানির স্তরম্যাপেরমাধ্যমে জানার জন্য জোনিং ম্যাপ পাঁচ বছরঅন্তরআপডেটকরণ।

সরেজমিন হতে

সংগৃহিত প্রাপ্ত ডাটার

ভিত্তিতে প্রস্তুতকরণ।

১৫।

রিনিউএবল এনার্জি (সোলার প্যানেল) চালিত সেচ যন্ত্রসংগ্রহ/সরবরাহ ও ক্ষেত্রায়ন।

রিনিউএবল এনাজি (সোলার প্যানেল) সেচকার্যে ব্যবহারের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ।

পরীক্ষামূলক পর্যায়ে

রয়েছে।

 

১৬।

ভূ-গর্ভস্থ স্থিতিশীল পানির সরত অপরিবর্তিত রাখার জন্যপ্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ।

ভূ-গর্ভস্থ পানির অধ্যাদেশ ১৯৮৭ যথাযথভাবে মাঠেপ্রয়োগ করে স্থিতিশীল পানির সরত অপরিবর্তিত রেখেপরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করণ।

প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা

গ্রহণের জন্য প্রচেষ্টা

নেয়া হচ্ছে।

১৭।

খামার হতে উৎপাদিত শস্য পরিবহন এবং জমি চাষাবাদেরজন্য ভ্যান, গরুরগাড়ী, ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলার ইত্যাদিচলাচলের জন্য ক্ষুদ্র আকারের গ্রামীণ সংযোগ রাস্তানির্মাণ।

খামারে যাতায়াতের জন্য ক্ষুদ্র আকারের গ্রামীণসংযোগ সড়ক নির্মাণ।

 

প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে

সেবা প্রদান করা ।

 

১৮।

কৃষি খামার যান্ত্রিকীকরণ ব্যবস্থার উন্নয়নে সহায়তাকরণ।

কৃষি যান্ত্রিকীকরণে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণ ওসহায়ক কার্যক্রম গ্রহণ।

কৃষকদের চাহিদা

অনুসারেবাস্তবায়নের

ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।